DSLR কে হার মানাতে পারে আইফোনের যে ক্যামেরা

DSLR কে হার মানাতে পারে আইফোনের যে ক্যামেরা

আমরা সবাই জানি আইফোন সব নতুন ফোনেই ক্যামেরার উন্নতিকরণে গুরুত্ব দেয়।  এটাই যেন রীতি হয়ে দাঁড়িয়েছে।  তারই ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে এবার আইফোনে তাদের ক্যামেরা প্রযুক্তিতে আরো উন্নতি করছে অ্যাপল। তাদের পরবর্তী আইফোনে এমন ক্যামেরা প্রযুক্তি ব্যবহৃত হতে পারে, যা রীতিমতো ডিএসএলআর ক্যামেরাকেও হারিয়ে দেবে। এটি ঠিক ডিএসএলআরের মতোই কাজ করবে।

অ্যাপল সম্প্রতি এমন একটি ক্যামেরা প্রযুক্তির পেটেন্ট আবেদন করেছে, যাতে নতুন ধরনের ফ্ল্যাশ মডিউল যুক্ত থাকছে ডিজিটাল ট্রেন্ডসের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

পেটেন্ট আবেদন অনুযায়ী, ফ্ল্যাশলাইট মডিউলটিকে বলা হবে ডুয়াল লেন্স ক্যামেরা ফোকাসিং লাইটিং মডিউল। এটি এলইডি ফ্ল্যাশের দিক পরিবর্তনে ব্যবহার করা যাবে। এ ছাড়া ব্যবহারকারী চাইলে ফ্ল্যাশ কমবেশি করতে বা ফ্ল্যাশলাইটের বিম পরিবর্তন করতে পারবেন।

যুক্তরাষ্ট্রের পেটেন্ট অ্যান্ড ট্রেডমার্ক অফিসে ওই পেটেন্ট আবেদনটি করা হয়। নতুন প্রযুক্তি কবে নাগাদ আইফোনে যুক্ত হবে, এ বিষয়ে অ্যাপল কোনো তথ্য জানায়নি। তবে বিশ্লেষকেরা ধারণা করছেন, পরবর্তী আইফোনে নতুন ক্যামেরা প্রযুক্তি আনতে পারে অ্যাপল। ভবিষ্যতের আইফোন ও আইপ্যাডগুলোতে আরও শক্তিশালী কাচ ব্যবহার করা হতে পারে বলেও প্রযুক্তিবিষয়ক বিভিন্ন ওয়েবসাইটে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। গত এপ্রিল মাসে ‘টার্বুলার গ্লাস কনস্ট্রাকটেড আইফোন’ নামে একটি পেটেন্ট আবেদন করেছে অ্যাপল। সে সূত্র ধরেই আরও শক্তিশালী গ্লাসের কথা বলা হচ্ছে।

অদ্ভুত এক বই শার্লক হোমস ও এযুগের শার্লক হোমস কলিন ক্লাউড

অদ্ভুত এক বই শার্লক হোমস ও এযুগের শার্লক হোমস কলিন ক্লাউড
কেমন হয় যদি কেউ মিথ্যা বললে চট করে ধরে ফেলতে পারেন, আবার কারো মুখ বা হাত দেখে তার পেশার খবর? কিংবা কারো হাত শুঁকে বলে দিতে পারেন, সে কি খেয়েছিল বা তার পোষা প্রাণী কি। এমনই একটি বিষয় নিয়ে আমার আজকের লেখাটি। তো এর আগে আমাদের Colin Cloud ( কলিন ক্লাউড কে? ) এ বিষয়ে জানা দরকার।

Colin Cloud first Audition

কলিন ক্লাউড কে?

তার আসল নাম Colin McLeod, পেশাগতভাবে তিনি কলিন ক্লাউড - Colin Cloud হিসাবে পরিচিত।
তিনি একজন স্কটিশ মনোবিশেষজ্ঞ। এবং তিনি নিজেকে ফরেনসিক মাইন্ড রিডার হিসাবে নিজেকে বর্ণনা করে। তিনি তার কাজগুলোকে শার্লক হোমসের নিকটতম বলে মনে করেন।
বিখ্যাত শো, আমেরিকা গট ট্যালেন্ট এ (America Got Talent) Colin Cloud এর পারফর্মেন্স দেখে প্রথমে অবাকই হয়েছিলাম। তার প্রথম ভিডিওর লিংক দিলাম দেখে নিতে পারেন:
Colin Cloud first Audition: https://www.youtube.com/watch?v=R5uZQxEUyMc

সেখান থেকে জানতে পারলাম সে শার্লক হোমসের ভক্ত ও অনুসারী। "Youtube এর Colin Cloud লিখে সার্চ করলে তার সব ভিডিও পেয়ে যাবেন।"


শার্লক হোমস ও তার রচনা সমগ্রের বাংলা অনুবাদ বইটি:

শার্লক হোমস হলেন ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষভাগ ও বিংশ শতাব্দীর প্রথম ভাগের একটি কাল্পনিক গোয়েন্দা চরিত্র। ১৮৮৭ সালে প্রথম আবির্ভূত এই চরিত্রের স্রষ্টা স্কটিশ লেখক ও চিকিৎসক স্যার আর্থার কোনান ডয়েল। হোমস একজন উচ্চমেধাসম্পন্ন লন্ডন-ভিত্তিক "পরামর্শদাতা গোয়েন্দা"। নির্ভুল যুক্তিসঙ্গত কার্যকারণ অনুধাবন, যে কোনো প্রকার ছদ্মবেশ ধারণ এবং ফরেনসিক বিজ্ঞানে দক্ষতাবলে জটিল আইনি মামলার নিষ্পত্তি করে দেওয়ার জন্য তাঁর খ্যাতি ভুবনজোড়া।

ফ্রিতে ডাউনলোড করুন: শার্লক হোমসের গল্পসমগ্রের বাংলা পিডিএফ টি  (১১১ এমবি)

লেখাটি ভালো লাগলে বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন। ইমেইল দিয়ে ওয়েবসাইটি সাবসক্রাইব করুন আমাদের নতুন পোষ্ট গুলোর ইমেইল নোটিফিকেশন সবার আগে পেতে। আর প্রতিদিন ট্রিকিটক ভিজিট করে আমাদের সাথেই থাকুন।

শার্লক হোমস রচনাসমগ্র বাংলা pdf ইবুক ফ্রিতে ডাউনলোড করুন

শার্লক হোমস রচনাসমগ্র বাংলা pdf ইবুক ফ্রিতে ডাউনলোড করুন

বিখ্যাত গোয়েন্দা চরিত্র শার্লক হোমসের গল্প সমগ্র:

শার্লক হোমস রচনাসমগ্র বই এর বাংলা অনুবাদটির
ডাউনলোড লিংক: http://bit.ly/2HqXHjh
শার্লক হোমস এর বই - Sarlok Homes bangla ebook free pdf

শার্লক হোমস কে?

শার্লক হোমস এর জীবনী
Credit: Wikipedia

শার্লক হোমস হলেন ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষভাগ ও বিংশ শতাব্দীর প্রথম ভাগের একটি কাল্পনিক গোয়েন্দা চরিত্র। ১৮৮৭ সালে প্রথম আবির্ভূত এই চরিত্রের স্রষ্টা স্কটিশ লেখক ও চিকিৎসক স্যার আর্থার কোনান ডয়েল। হোমস একজন উচ্চমেধাসম্পন্ন লন্ডন-ভিত্তিক "পরামর্শদাতা গোয়েন্দা"। নির্ভুল যুক্তিসঙ্গত কার্যকারণ অনুধাবন, যে কোনো প্রকার ছদ্মবেশ ধারণ এবং ফরেনসিক বিজ্ঞানে দক্ষতাবলে জটিল আইনি মামলার নিষ্পত্তি করে দেওয়ার জন্য তাঁর খ্যাতি ভুবনজোড়া।

লেখাটি ভালো লাগলে বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন। ইমেইল দিয়ে ওয়েবসাইটি সাবসক্রাইব করুন আমাদের নতুন পোষ্ট গুলোর ইমেইল নোটিফিকেশন সবার আগে পেতে। আর প্রতিদিন ট্রিকিটক ভিজিট করে আমাদের সাথেই থাকুন।

ক্লাউড কম্পিউটিং কি? এটি কিভাবে কাজ করে?

ক্লাউড কম্পিউটিং কি? এটি কিভাবে কাজ করে?
বর্তমান  বিশ্বে ক্লাউড কম্পিউটিং একটি বহুল আলোচিত বিষয়।  আমরা সবাই বইয়ে এবং পেপার পত্রিকায় এটি সম্পর্কে বিভিন্ন নিউজ দেখি। কিন্তু, এটা সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা অনেকেরই নেই। । এই প্রযুক্তির উপর প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানসমূহ বেশ গুরুত্ব দিচ্ছে। যেমন:

Top Cloud Computing Service Providers

  1. Google Cloud

  2. Amazon AWS

  3. Microsoft Azure Cloud Computing Platform & Services

  4. Alibaba Cloud Service

clout computing diagram

ক্লাউড কম্পিউটিং এর আগামী দিন:

ক্লাউড কম্পিউটিং এর বাজার ধরতে প্রায় সকল প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান জোরেসোরে তাদের ক্লাউড কম্পিউটিং প্লাটফর্ম এর উন্নতি সাধন করছে।

ক্লাউড কম্পিউটিং কি?

ইন্টারনেট নির্ভর কম্পিউটিং হচ্ছে ক্লাউড কম্পিউটিং। ক্লাউড কম্পিউটিং এমন একটি কম্পিউটিং প্রযুক্তি যা ইন্টারনেট এবং কেন্দ্রীয় রিমোট সার্ভার ব্যবহারেরমাধ্যমে ডেটা এবং এপ্লিকেশনসমূহ নিয়ন্ত্রণ ও রক্ষণাবেক্ষণ করতে সক্ষম। ইন্টারনেট ভিত্তিক এপ্লিকেশন দ্বারা যে কোনো একটি কম্পিউটার হতে ইন্টারনেট ব্যবহার করে এপ্লিকেশনসমূহইনস্টলেশন ছাড়া নিজস্ব ফাইলগুলো এক্সেস করা যায় অনায়াসে।

সহজ ভাষায় ক্লাউড কম্পিউটিং বলতে রিমোটলি অর্থাৎ আপনার কম্পিউটার ক্লাউড সার্ভিস সার্ভিস প্লাটফর্মগুলো থেকে হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়্যার রিসোর্সে ব্যবহার করতে পারবেন। আরো সহজ ভাষায়, আপনি ক্লাউড কম্পিউটিং সার্ভিস ব্যবহার করে হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার সার্ভিস নিতে পারবেন। গুগল ড্রাইভ বা মাইক্রোসফট ড্রপবক্স এ আপনি শুধু ফাইল জমা রাখতে পারেন, কিন্তু ক্লাউড সার্ভিস এ আপনি ফাইল জমা রাখার পাশাপাশি সেগুলো প্রয়োজন মতো অনলাইনেই বিভিন্ন সফটওয়্যার দ্বারা ব্যবহার করতে পারবেন।
men working

ক্লাউড কম্পিউটিং সার্ভিস কেন প্রয়োজন?

আপনি কোনো ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার ব্যবহার করলে অবশই জানবেন ভিডিও এডিট এবং প্রসেস করতে কম্পিউটার এর খুব বেশি প্রসেসিং শক্তি ব্যায় হয়। যা অনেক সময় আমাদের সীমিত ক্ষমতা সম্পন্ন কম্পিউটার এর প্রসেসর দ্বারা সম্ভব হয় না। এছাড়া অনলাইন এ ফাইল জমা রাখার জন্য এবং তা প্রয়োজন মতো ব্যবহার করতে ক্লাউড কম্পিউটার এর জুড়ি নেই।

ক্লাউড কম্পিউটিং এর নিরাপত্তা:

ক্লাউড কম্পিউটিং সার্ভিস প্লাটফর্মগুলো তাদের সেরাটাই চেষ্টা করে সর্বোচ্চ ডেটা নিরাপত্তা প্রদান করতে।  তবে, শোনা গিয়েছিলো একবার Amazon AWS (Amazon Web Service) সার্ভিস থেকে ডেটা চুরি হয়েছিল। তবে এটা খুব কম ঘটে বা ঘটে না বললেই চলে।
ক্লাউড সার্ভারে আপনার পরিষেবার জন্য আপনার প্রোভাইডারকে নিরাপত্তার জন্য পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নিতে হবে। ডেডিকেটেড আইটি সাপোর্ট, সুরক্ষা এবং এনক্রিপশন, ফায়ারওয়াল এবং ডেটা পুনরুদ্ধারের মাধ্যমে ক্লাউড সার্ভিস প্রদানকারীরা তথ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে ।
ডেডিকেটেড সার্ভারে আপনাকে আপনার সংবেদনশীল এবং গোপনীয় ব্যবসায়িক তথ্য নিরাপদ করার জন্য আপনার ডেডিকেটেড সার্ভার আপগ্রেড করার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপগুলি নিতে হবে।


ক্লাউড সার্ভিস এর খরচ :

আপনার প্রয়োজন, স্টোরেজ, হার্ডওয়্যার এবং সফটওয়্যার রিসোর্সে এর ব্যবহার অনুযায়ী ক্লাউড কম্পিউটিং এর দাম নির্ধারিত হয়। তাদের ওয়েবসাইট এ গেলে  দেখে নিতে পারবেন।
ক্লাউড কম্পিউটিং সম্পর্কে আরো জানতে বা এটি কিভাবে কাজ করে , প্রকারভেদ , সুবিধা এবং অসুবিধা। এই আর্টিকেল টি পরে আস্তে পারেন।

লেখাটি শেয়ার করে Trickytalk এর পাশে থাকুন। ধন্যবাদ।




বজ্রপাত থেকে আপনার কম্পিউটার বাঁচান।

বজ্রপাত থেকে আপনার কম্পিউটার বাঁচান।
আপনি জানলে অবাক হবেন যে আগের চেয়ে বজ্রপাতের হার অনেকাংশে বেড়ে গেছে। বজ্রপাতের সময় নিজেকে রক্ষার পাশা পাশি আপনার আপনার কম্পিউটার এর জন্য সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত।


বজ্রপাত থেকে কম্পিউটার বাঁচানোর উপায়সমূহ:

১.বজ্রপাতের কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয় রাউটার ডিভাইসগুলোর। বজ্রপাতের আভাস পেলে শুধু রাউটারের লাইন বন্ধ করলেই চলবে না, রাউটার থেকে ইন্টারনেট সংযোগের ল্যান কেবলটিও খুলে রাখতে হবে। তবে যদি আপনার ইন্টারনেট সংযোগে অপটিক্যাল ফাইবার কেবল ব্যবহার করা হয়, তাহলে বজ্রপাতের ক্ষতির আশঙ্কা কম থাকে। কেননা এসব কেবলে ধাতব তারের ব্যবহার হয় না।

২. বজ্রপাতের আভাস পেলেই কম্পিউটার, রাউটার, টেলিভিশন, ফ্রিজসহ বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতির সুইচ বন্ধ রাখতে হবে। বাসার বাইরে থাকার সময়ও বজ্রপাত হতে পারে। সে ক্ষেত্রে বাইরে যাওয়ার আগেই কম্পিউটার, রাউটারসহ বিভিন্ন প্রযুক্তিপণ্যের সুইচ অফ করে দিলে বজ্রপাতে ক্ষয়ক্ষতির ঝুঁকি এড়ানো যাবে।

৩. বজ্রপাতের কারণে বেশি নষ্ট হয় টেলিভিশন। কেননা টেলিভিশনের সঙ্গে ডিশের লাইনের সংযুক্ত থাকে। ফলে  কোনো এলাকায় বজ্রপাত হলে ডিশের লাইনের মাধ্যমে সহজেই টিভির ক্ষতি করে। অনেকেই কম্পিউটারে টিভি কার্ড ব্যবহার করেন। ফলে বজ্রপাতের সময় ডিশ লাইন সংযোগ থাকায় কম্পিউটারেরও ক্ষতি হতে পারে। এ ক্ষেত্রে বজ্রপাতের সময় ডিশের সংযোগটি খুলে রাখুন। এতে প্রযুক্তিপণ্যগুলো নিরাপদ থাকবে।

৪. ভালোমানের মাল্টিপ্লাগ ব্যবহার করতে হবে। যে মাল্টিপ্লাগগুলো সেলফ কন্ট্রোল অটোমেটিক সিস্টেমে বিদ্যুত্প্রবাহ নিয়ন্ত্রণ করে, সেগুলো ব্যবহার করাই ভালো। ফলে হাই ভোল্টেজ বা বজ্রপাতের সময়ও মাল্টিপ্লাগের সঙ্গে সংযুক্ত থাকা ডিভাইসে প্রভাব পড়বে না। বাজারে এমন নানা ব্র্যান্ডের মাল্টিপ্লাগ রয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো ‘হান্টকি ব্র্যান্ড’। দেশের বাজারে ব্র্যান্ডটির মাল্টিপ্লাগ মডেলভেদে দাম ৫০০ থেকে তিন হাজার টাকা।

৫. বজ্রপাত থেকে বাসাবাড়ি ও যন্ত্রাংশ রক্ষা করতে আর্থিং করতে হবে। বাড়িতে বৈদ্যুতিক সংযোগ নেওয়ার সময় একটা মেইন লাইন থাকে এবং অন্যটি থাকে নিউট্রাল লাইন। এই নিউট্রাল লাইনটা রড বা তার দিয়ে মাটিতে পুঁতে দেওয়া হয়, যাকে বলে আর্থিং। এটি বজ্রপাতের পর বিদ্যুেক নিরাপদে মাটিতে নিয়ে যেতে ব্যবহৃত হয়। বজ্রপাতের কারণে অতিরিক্ত ভোল্টেজ বা কারেন্ট প্রবাহিত হলে আর্থিংয়ের মাধ্যমে তা নিরাপদ পথে মাটিতে নেমে আসে। ফলে বহু মূল্যবান যন্ত্রাংশ নষ্ট হয়ে যাওয়ার হাত থেকে বেঁচে যায়।

আমাদের লেখা ভালো লাগেলে বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে আমাদের কষ্ট সার্থক করুন।

লেবুর খোসার উপকারীতা জানলে এর খোসা খাওয়া শুরু করবেন!

লেবুর খোসার উপকারীতা জানলে এর খোসা খাওয়া শুরু করবেন!
ভাতের সাথে লেবু, কিংবা লেবুর শরবত সবাই পছন্দ করে। কিন্তু লেবুর খোসা সবাই অবহেলে করে ফেলে দেয়। কিন্তু আমরা অনেকে জানি না লেবুর খোসা কতটা উপকারী। হা লেবু। যার রসের চেয়ে খোসার উপকার বেশি। কিন্তু আমরা এর উপকার সম্পর্কে জানি না বলে শুধু রস গ্রহণ করি আর খোসা ফেলে দেই। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন একেবারেই ভিন্ন কথা। তারা বলছেন, ‘লেবুর চেয়ে তার খোসার উপকাার বেশি এবং মানুষ এর উপকার সম্পর্কে জানলে রস নয় খোসাই বেশি খেত।’ টোয়েন্টিফোর লাইভ নিউজ পেপার-এর পাঠকদের জন্য লেবুর খোসার তেমনি গুরুত্বপূর্ণ পাঁচটি উপকার তুলে ধরা হল-








১. লেবুর খোসায় প্রচুর পরিমাণে ‘পেকটিন’ নামক উপাদান থাকে। যা শরীরের ওজন কমাতে সাহায্য করে। কারণ এই উপাদানটি শরীরের অতিরিক্ত চর্বিকে ঝরিয়ে ফেলতে সাহায্য করে।

২. লেবুর খোসায় ‘স্য়ালভেসস্ট্রল কিউ ৪০’ ও ‘লিমোনেন্স’ নামে দুইটি উপাদান থাকে, যা ক্যান্সার সেল ধ্বংস করে থাকে। তাই নিয়মিত লেবুর খোসা খেলে শরীরের ভেতরে ক্যান্সার সেলের জন্ম নেওয়ার ঝুকি কমে যায়।

৩. আমরা জানি যে, ভিটামিন সি এর অভাবে মুখের মধ্যে মাড়ি থেকে রক্ত পড়া, জিঞ্জিভাইটিসসহ একাধিক রোগ হতে পারে। ভিটামিন সি এবং সাইট্রিক অ্যাসিড এসব রোগের প্রকোপ কমাতে সাহায্য করে। আর এ উপাদান দুটি লেবুর খোসায় পাওয়া যায়।






৪. লেবুর খোসায় থাকা ‘পলিফেনল’ নামে একটি উপাদান শরীরে খারাপ কোলেস্টরলের মাত্রা কমায়। আর লেবুর পটাশিয়াম ব্লাড প্রেসারকে নিয়ন্ত্রণে রাখে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই হার্টের রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা কমে যায়।

৫. এখানেই শেষ নয়। লেবুর খোসায় সাইট্রাস বায়ো-ফ্লেভোনয়েড থাকে। যা শরীরের ভেতরে যাওয়ার পরপরই অক্সিডেটিভ স্ট্রেস কমতে শুরু করে। ফলে সার্বিকভাবে মন, মস্তিষ্ক ও শরীর একদম চাঙ্গা হয়ে ওঠে।

তাই কোন স্বাস্থ্য সচেতন মানুষের কাছেই লেবুর খোসা ফেলনা নয়। এখন থেকেই আপনার নিয়মিত খাবার তালিকায় লেবুর খোসা যুক্ত করে নিন। কারণ খোসা কুচি যেমনি দেবে সুঘ্রাণ তেমনি পাবেন অনেক উপকার। তাই আজ থেকেই শুরু করে দিন।

জেনে নিন কি কি কারণে সেলফি বাঁকা হয়

জেনে নিন কি কি কারণে সেলফি বাঁকা হয়
সেলফি তুলতে সবাই ভালোবাসে কম বেশি।  কিন্তু অনেকের কাছে এটা নেশার মতো। স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা ফ্রন্ট-ক্যামেরার মাধ্যমে নিজেদের প্রকাশ করতে বিভিন্ন ভঙ্গিতে এই সেলফিগুলো তুলে থাকে। তবে, লক্ষ্য করলে দেখা যায়- কারর তুলে দেওয়া অন্য ছবির তুলনায় সেলফি অনেক বেশি বাঁকাচোরা হয়। এর কয়েকটি কারণের কথা আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম হাফিংটন পোস্ট-এর একটি প্রতিবেদন অনুযায়ী তুলে ধরা হলো।




men selfie


ক্যামেরার লেন্সের ব্যবহার: ক্যামেরার লেন্সের উপরে অনেক সময় ছবির চরিত্র বদলে যায়। নিজেকে খানিকটা সুন্দর ও স্মার্ট দেখানোর জন্য লম্বা লেন্স ব্যবহার করাই শ্রেয়। খুব কাছ থেকে ছবি তুললে, মুখের যে অংশ লেন্সের কাছাকাছি থাকে, সেই অংশই প্রভাব ফেলে ছবিতে। যেমন, নাক। এবং সেলফি তোলার সময় সকলেই লেন্সের খুব কাছে থাকে। তাই ছবি খানিক বাঁকাচোরা ওঠে। এমন কথাই জানালেন চিত্রগ্রাহক জে পেরি।

আয়নায় প্রতিবিম্ব: মানুষের মুখের প্রোফাইল দু’দিকে সমান হয় না। আর ছোটবেলা থেকেই আমরা আয়নায় নিজেদের দেখে অভ্যস্ত। এবং আমরা এটাই মনে করি যে, অন্যরাও আমাদের আয়নার প্রতিফলনের মতোই দেখে। কিন্তু, আদতে সেলফি তোলার সময় তা হয় না। ফলে, সেখানে নিজেকে খানিকটা বাঁকাই লাগে। সেদিক থেকে দেখতে গেলে এমনটা বলাই যায় যে, আয়না আসলে মিথ্যে, বললেন কানাডার এক বিশিষ্ট চিত্রগ্রাহক জে পেরি। তবে, বর্তমানের অনেক স্মার্টফোনেই ‘মিরর ইমেজ’ অপশন রয়েছে।

পরিচিত মুখ দেখে অভ্যস্ত: মানুষ সারাক্ষণ যা দেখে, তাতেই অভ্যস্ত হয়ে যায়। এবং সেটাই পছন্দ করতে শুরু করে। যে কারণে, ছোটবেলা থেকে আয়নায় নিজের যে প্রতিবিম্বের সঙ্গে আমরা পরিচিত থাকি, সেটাই আমাদের ভাল লাগে। এমনই কথা বলেছেন ‘মিডিয়া সাইকোলজি রিসার্চ সেন্টার’-এর ডাইরেক্টর পামেলা রাটলেজ। সেলফি তুললে, স্বাভাবিকভাবেই প্রোফাইল বদলে যায়। এবং তা পছন্দ মতো হয় না।

How to Clear Chrome Cache - Super Fast Way

How to Clear Chrome Cache - Super Fast Way
 
Clear Chrome Cache - Super Fast Way
Image from: materialdesignblog.com


As you already know that google chrome is one of the fastest browsers for using different internet services, but do you know why? Chrome automatically stores many types of website data when you open a website and that is why it takes less time compared to before to load your web page.

But as google chrome stores site data for fast loading it is also possible that chrome can get more slowly because of storing too much data and believe me guys when it happens it's the worst thing ever. The Cache helps speed up navigation, but slows down the Browser, so here's a step-by-step guide on How to clear cache in Chrome and make your browser faster than before.
In this guide, you will learn 2 ways to clean the chrome cover. The default way and the fast way, So do not miss to check the two methods.

How to Clear the Cache in the Chrome Default Method

Step 1. First, open your Google Chrome browser.
Step 2. Then click Customize and control the Google Chrome button in the upper right corner.
Step 3. Select the History option. You can also press CTRL + H to open this menu box directly.


Clear Chrome Cache
Clear chrome cache
Step 4. After performing the above steps, choose Clear browsing data to clear your recent web files and other navigation data.

Step 5. Now carefully choose the time period and check or uncheck the options in the menu.At the last time, click Clear Data Browsing and that's it and how to clear the cache in Chrome. Your any type of recently used Web sites and web data will be automatically deleted after you press this option. If you are confused about the above steps, you can simply press CTRL + SHIFT + DEL button and then clear all your browsing data.


All types of cookies, cached plugin data, passwords, form fills and any other type of application data will be deleted from your browser.


Clearing the cache in the speed of the Chrome

 You can also use different types of extensions that are available online for the Chrome browser. With the help of these extensions, the user will be able to delete the browsing history with just one click. Here I have some of the best extensions mentioned you can use your Chrome browser.
 

1. Killer Cache

There are a lot of extensions that are available for cleaning buffered data to supplement chrome in your browser. Cache killer is counted in one of the most popular extensions for the Chrome browser. This extension is so simple, which can be easily controlled with one click.

You have correctly and activated this add in your browser Chrome is installed, then it will help to delete your data automatically add cache. Not only that, but you can also see the latest version of websites with the help of this useful extension.


2. Clear the cache

This extension contains many amazing features that allow you to delete the navigation data, which generally contain downloads, cookies, cache, history, filled with forms and other memory.If you compare this extension to the killer cache, you'll see that this extension is more useful. Just click the clear cache icon and you will automatically download data navigation.

3. Cleaner Oneclick 

As all extensions discussed above, One Click Cleaner also performs the same work. With the help of this extension, the user can clean all Google Chrome browser with just one click. One Click Cleaner contains many types of options that delete straight data.Every time you find that your browser is working slowly, just use this extension, and wipe out all the data type to replenish your browser cache again to speed up Chrome.You only learn two ways to clear the cache in Chrome, this guide will help you not only delete the cache in chrome, but also delete cookies and the browsing history.[Style alert = "For example, you should always try to delete data from Google Chrome Cache after each use, as it is the best way to speed up your Chrome browser when you're doing this with regularity, Then surely you can enjoy internet services without problems. [/ Alarm]Hope you enjoyed this article while reading. If you have any confusion or problems regarding the content above, you can leave your comment below and press your problem.