লেবুর খোসার উপকারীতা জানলে এর খোসা খাওয়া শুরু করবেন!

ভাতের সাথে লেবু, কিংবা লেবুর শরবত সবাই পছন্দ করে। কিন্তু লেবুর খোসা সবাই অবহেলে করে ফেলে দেয়। কিন্তু আমরা অনেকে জানি না লেবুর খোসা কতটা উপকারী। হা লেবু। যার রসের চেয়ে খোসার উপকার বেশি। কিন্তু আমরা এর উপকার সম্পর্কে জানি না বলে শুধু রস গ্রহণ করি আর খোসা ফেলে দেই। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন একেবারেই ভিন্ন কথা। তারা বলছেন, ‘লেবুর চেয়ে তার খোসার উপকাার বেশি এবং মানুষ এর উপকার সম্পর্কে জানলে রস নয় খোসাই বেশি খেত।’ টোয়েন্টিফোর লাইভ নিউজ পেপার-এর পাঠকদের জন্য লেবুর খোসার তেমনি গুরুত্বপূর্ণ পাঁচটি উপকার তুলে ধরা হল-








১. লেবুর খোসায় প্রচুর পরিমাণে ‘পেকটিন’ নামক উপাদান থাকে। যা শরীরের ওজন কমাতে সাহায্য করে। কারণ এই উপাদানটি শরীরের অতিরিক্ত চর্বিকে ঝরিয়ে ফেলতে সাহায্য করে।

২. লেবুর খোসায় ‘স্য়ালভেসস্ট্রল কিউ ৪০’ ও ‘লিমোনেন্স’ নামে দুইটি উপাদান থাকে, যা ক্যান্সার সেল ধ্বংস করে থাকে। তাই নিয়মিত লেবুর খোসা খেলে শরীরের ভেতরে ক্যান্সার সেলের জন্ম নেওয়ার ঝুকি কমে যায়।

৩. আমরা জানি যে, ভিটামিন সি এর অভাবে মুখের মধ্যে মাড়ি থেকে রক্ত পড়া, জিঞ্জিভাইটিসসহ একাধিক রোগ হতে পারে। ভিটামিন সি এবং সাইট্রিক অ্যাসিড এসব রোগের প্রকোপ কমাতে সাহায্য করে। আর এ উপাদান দুটি লেবুর খোসায় পাওয়া যায়।






৪. লেবুর খোসায় থাকা ‘পলিফেনল’ নামে একটি উপাদান শরীরে খারাপ কোলেস্টরলের মাত্রা কমায়। আর লেবুর পটাশিয়াম ব্লাড প্রেসারকে নিয়ন্ত্রণে রাখে। ফলে স্বাভাবিকভাবেই হার্টের রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা কমে যায়।

৫. এখানেই শেষ নয়। লেবুর খোসায় সাইট্রাস বায়ো-ফ্লেভোনয়েড থাকে। যা শরীরের ভেতরে যাওয়ার পরপরই অক্সিডেটিভ স্ট্রেস কমতে শুরু করে। ফলে সার্বিকভাবে মন, মস্তিষ্ক ও শরীর একদম চাঙ্গা হয়ে ওঠে।

তাই কোন স্বাস্থ্য সচেতন মানুষের কাছেই লেবুর খোসা ফেলনা নয়। এখন থেকেই আপনার নিয়মিত খাবার তালিকায় লেবুর খোসা যুক্ত করে নিন। কারণ খোসা কুচি যেমনি দেবে সুঘ্রাণ তেমনি পাবেন অনেক উপকার। তাই আজ থেকেই শুরু করে দিন।

শেয়ার করুন

লেখকঃ

পূর্ববর্তী পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট