বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষুদ্র কম্পিউটার বানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের গবেষকরা



বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষুদ্রতম "কম্পিউটার", এতটা ক্ষুদ্র যে কেউ মনে করবে যে এটি সম্পূর্ণরূপে অর্থহীন, কিন্তু এটি দেখা যাচ্ছে, এটি স্বাস্থ্য পর্যবেক্ষণের ভবিষ্যতের জন্য আনন্দের খবর হতে পারে।

বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষুদ্র কম্পিউটার তৈরির দাবি করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের গবেষকেরা। ‘মিশিগান মাইক্রো মোট’ নামের এ ডিভাইসটির আকার মাত্র দশমিক তিন মিলিমিটার। এটি ক্যানসার পর্যবেক্ষণ ও চিকিৎসায় নতুন সম্ভাবনার পথ খুলে দেবে বলে মনে করছেন গবেষকেরা।

দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের এক খবরে বলা হয়, এর আগে গবেষকেরা ২ বাই ২ বাই ৪ মিলিমিটার আকারের একটি ডিভাইস তৈরি করেছিলেন। তাতে বাইরে থেকে শক্তি জোগানো বন্ধ হলেও তা তথ্য ধরে রাখতে পারত। কিন্তু ক্ষুদ্রতম কম্পিউটারটির ক্ষেত্রে একবার চার্জ শেষ হলে তার আগের সব তথ্য মুছে যায়।

র‍্যাম ও ফটোভল্টাইকসসহ এ কম্পিউটিং ডিভাইসে প্রসেসর, তারহীন ট্রান্সমিটার ও রিসিভার রয়েছে। যেহেতু এতে প্রচলিত রেডিও অ্যানটেনা নেই এটি দৃশ্যমান আলোর সাহায্যে তথ্য আদান-প্রদান করে। একটি বেজ স্টেশন শক্তি ও প্রোগ্রামের জন্য আলো সরবরাহ করে এবং তথ্য গ্রহণ করে।

"কম্পিউটার" শব্দটি বিশ্ববিদ্যালয় দ্বারা আবদ্ধভাবে ব্যবহার করা হয়, কারণ কম্পিউটারটি কীভাবে প্রশ্ন করা হয় তা ঠিক কীভাবে হয়। এটি একটি প্রসেসর আছে, কিন্তু একটি পূর্ণ আকারের কম্পিউটার অসদৃশ, এটি শক্তি হারায় যখন এটি সব তথ্য হারায়।

ক্ষুদ্র এই মাইক্রো কম্পিউটার অন্যান্য কাজে লাগানোর কথা ভাবছেন গবেষকেরা। তেল সংরক্ষণের পর্যবেক্ষণ, বায়োকেমিক্যাল প্রক্রিয়াকরণ পর্যবেক্ষণ, অডিও এবং ভিসুয়াল নজরদারি, এবং একটি কূটনৈতিক উদ্দেশ্য ব্যবহার করা যাবে অদূর ভবিষ্যতে।

শেয়ার করুন
পূর্ববর্তী পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট